1. admin@deshomanusherbarta24.xyz : admin :
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জটিল কঠিন রোগের সুচিকিৎসা পেতে এখনি এসে পড়ুন কবিরাজ মোল্লা আসাদুজ্জামান রিপন এর কাছে ৪৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মোঃ তুহিন মিয়ার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন-হারুনর রশীদ মুন্না ১৫ই আগস্ট: ইতিহাসের অন্ধকারতম অধ্যায়-মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সি ১৫ ই আগস্ট এর সেইদিন জাতির জন্য ছিল এক কালো অধ্যায়-আব্দুল খালেক মুন্সি ১৫ই আগস্ট বৃষ্টিঝরা শ্রাবণের অন্তিম দিনে সেদিন বৃষ্টি ঝরেনি, ঝরেছিল দেশপ্রেমিকের রক্ত- হারুনর রশীদ মুন্না সর্বসম্মতিক্রমে দ্বিতীয় প্রান্তিক পাস সকল পরিচালকের উপস্থিতিতে সাউথইস্ট ব্যাংকের বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত এমপি শামীম ওসমানের সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপির সুস্থতা কামনায় দোয়া চাইলেন-চেয়ারম্যান, আলহাজ্ব শওকত আলী এমপি শামীম ওসমানের সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপির সুস্থতা কামনায় দোয়া চাইলেন- মোঃ আনোয়ার হোসেন এমপি শামীম ওসমানের সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপির সুস্থতা কামনায় দোয়া চাইলেন-মেম্বার মোঃ আলাউদ্দিন হাওলাদার এমপি শামীম ওসমানের সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপির সুস্থতা কামনায় দোয়া চাইলেন-মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সি

রাজপথের ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা হারুনর রশীদ মুন্নার রাজনৈতিক জীবনের গল্প বললেন-মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২২ জুন, ২০২১
  • ৯৬ Time View

নিজস্ব প্রতিনিধি, রাহাদ হোসেনঃ বঙ্গবন্ধুর দুর্নীতিমুক্ত স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কারিগর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা মেনেই সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য সর্বসময় পাশে ছিলেন রাজপথের ত্যাগী সংগ্রামী আওয়ামী লীগ নেতা, ঢাকা-০৫ এমপি তৈরীর কারিগর, সাবেক ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং ঢাকা-৫ সংসদীয় আসন নির্বাচন, ১৪ দলের প্রধান সমন্বয়ক হারুনর রশীদ মুন্না। কারও কাছে শ্রদ্ধেয় হারুন ভাই কিংবা মুন্না ভাই আবার মুরুব্বীদের কাছে স্নেহের হারুন কিংবা মুন্না নামে পরিচিত।

হারুনর রশীদ মুন্না ঢাকা-৫ (যাত্রাবাড়ী-ডেমরা) তথা ঢাকা শহরে চিনেনা এরকম মানুষ খুব কমই রয়েছে। তার এই পরিচিতির পিছনে রয়েছে আন্দোলন, ত্যাগ, সংগ্রামের নানা রাজনৈতিক ইতিহাস যা হয়তো অনেকের কাছেই অজানা।

হারুনর রশীদ মুন্নার রাজনৈতিক জীবনের কিছু ঘটনা সম্পর্কে প্রতিবেদক তৃনমূল আওয়ামী লীগের রাজপথের একজন লড়াকু সৈনিক, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব একেএম শামীম ওসমান এবং তাঁর অত্যন্ত আস্থাভাজন প্রিয় ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ নেতা মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সির কাছে জানতে গেলে তিনি হারুনর রশীদ মুন্নার রাজনৈতিক জীবন সম্পর্কে বলেন,

মুন্সিগন্জ জেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের অন্তর্গত মাকহাটি গ্রামের ঐতিহ্যবাহী শিকদার বাড়িতে (হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের নানা বাড়ী) সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে হারুনর রশীদ মু্ন্না ভাই জন্ম গ্রহন করেন।

হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের পিতা মকবুল হোসেন ব্যাপারী চাচা এবং মাতা জহুরা হিরন বেগম চাচীর জ্যেষ্ঠ সন্তান হারুনর রশীদ মু্ন্না ভাই পরিবার থেকেই মুজিব আদর্শের শিক্ষা গ্রহন করেন।

তার পিতা মকবুল হোসেন ব্যাপারী চাচা মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত একজন মুজিব আদর্শের সৈনিক হিসেবে সমাদৃত ছিলেন এবং মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্বরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

হারুনর রশীদ মুন্না ভাই ১৯৮৭ সালে মুন্সিগঞ্জ হরগঙ্গা কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অর্জনের জন্য ভর্তি হয়ে জাতির পিতার আদর্শকে বুকে লালন করে জাতির পিতার নিজ হাতে গড়া সংগঠন, শিক্ষা শান্তি প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, হরগঙ্গা কলেজ শাখার মাধ্যমে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন।

স্বৈরাচারী এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহনের মাধ্যমে জীবনের প্রথম আন্দোলনে অংশগ্রহন করেন, তারপর ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের তৎকালীন নেতৃবৃন্দ মারুফ ভাই- মতি ভাই এর নেতৃত্বে ঢাকায় ছাত্র আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৯০ সালের ১৩ই অক্টোবর, ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ডাকে হরতাল চলাকালীন সময়ে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই গ্রেফতার হন এবং গ্রেফতারের পর তাকে ডেমরা থানা থেকে জেলে প্রেরণ করা হয়। তারপর আইনের সহায়তায় জীবনের প্রথম কারাভোগ শেষ করে ১৯ দিন পর জেল থেকে মুক্তি পান।

১৯৯০ সালের ১২ই ডিসেম্বর এরশাদ সরকারের পদত্যাগের পর যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তায় আওয়ামী লীগের পক্ষে সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেই সমাবেশে ফ্রিডম পার্টির নেতৃত্বে হামলা করা হয় এবং স্টেজ ভাঙ্গচুর করা হয়। অতর্কিত হামলার কারণে সেই সময়ে সমাবেশ পন্ড হয় এবং অনেক নেতাকর্মী সহ হারুনর রশিদ মুন্না ভাই গুরুতর আহত হন।

এরশাদ সরকার পতনের পর ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৎকালীন ঢাকা-০৪ আসনের জোটের প্রার্থী সাইফুদ্দিন মানিকের পক্ষে তৎকালীন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা সফর আলী সাহেবের নেতৃত্বে নির্বাচন পরিচালনা করা হয় এবং উক্ত নির্বাচনে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই ধোলাই-পাড় উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯২ সালের ২৬শে মার্চ শহীদ জননী জাহানারা ইমামের গণআদালতের আন্দোলনে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই এবং তৎকালীন ৫৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং বর্তমান ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ সহ আরো অনেকেই পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন। সেদিন রাতে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) ভাইয়ের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় উনারা সকলে থানা থেকে মুক্তি পান।

১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর বাবরী মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ডাকা হরতাল চলাকালীন সময়ে হরতাল সফলের লক্ষ্যে পোস্তগোলা-জুরাইন-ধোলাইপাড় হয়ে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী সহ মিছিল নিয়ে যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তায় আসার পর বিএনপি-জামাত-ফ্রিডম পার্টির যৌথ হামলায় হারুনর রশীদ মুন্না ভাই সহ অনেক নেতাকর্মী গুরুতর আহত হন। অচেতন হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে সেখানে উপস্থিত দমকল বাহিনীর কর্মীদের সহযোগিতায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৯ই ডিসেম্বর তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ_হাসিনা এবং তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান সাহেব হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে দেখতে আসেন এবং উনার উন্নত চিকিৎসার জন্য তৎকালীন বিএমএ এর সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনকে হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন। উনার চিকিৎসার সমস্ত ব্যয়ভার জননেত্রী নিজেই বহন করেন।

হারুনর রশীদ মুন্না ভাই ১৯৯৩ সালে তৎকালীন বৃহত্তর ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের প্রথম যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে অত্র এলাকায় নেতৃত্ব প্রদান শুরু করেন।

১৯৯৪ সালে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফ সাহেবের নির্বাচনে বৃহত্তর ডেমরা থানার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন জাতীয় নেতা আব্দুর রাজ্জাক ভাই, তার সাথে ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, তৎকালীন মহানগর আওয়ামী লীগের শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান, বৃহত্তর ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক সফর আলী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না ভাই এবং সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মোসলেহ উদ্দিন সাহেব। ভোট গ্রহণের দিন দায়িত্বরত নেতৃবৃন্দের ওপর তৎকালীন ৮৬ নং ওয়ার্ডের যাত্রাবাড়ী প্রাইমারি স্কুল কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আলাউদ্দিন কন্ট্রাকটরের পক্ষে অবস্থানকালীন সময়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী নবী উল্লাহ নবী তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে নেতৃবৃন্দের উপর সশস্ত্র হামলা করে। তাদের হামলায় আব্দুর রাজ্জাক ভাইয়ের গাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিলো। নবী উল্লাহ নবীর সন্ত্রাসী বাহিনীর গুলিতে তৎকালীন মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান গুলিবিদ্ধ হন এবং হারুনর রশীদ মুন্না ভাই গুরুতর আহত হন।

১৯৯৫ সালের ২৭ শে আগষ্ট বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঘোষিত নির্বাচন কমিশন ঘেরাও কর্মসূচিতে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না ভাই, তৎকালীন ৯০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শরীফ মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, ৯০নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি বদিরউদ্দিন বদুর নেতৃত্বে মিছিল নিয়ে কাওরান বাজার অতিক্রম করার সময় পুলিশ ও বিএনপি সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় তাদের মিছিল ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় এবং ঐদিন রাতেই জানতে পারে তাদের সহযোদ্ধা বদিরউদ্দিন বদু সেখানে নিহত হন।

১৯৯৬ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কর্তৃক বিএনপির প্রহসনের নির্বাচন বর্জন ঘোষণার পর রাতে হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের নেতৃত্বে ধোলাইপাড় উচ্চ বিদ্যালয় ও ধোলাইপাড় সিও অফিস কেন্দ্র তালাবদ্ধ করা হয় এবং ১৫ই ফেব্রুয়ারী নির্বাচনের দিন বিএনপি সমর্থিত সংসদ সদস্য প্রার্থী সালাউদ্দিন আহম্মেদের গাড়ি ভাঙচুর করা হয় এবং এলাকা থেকে তাকে বিতাড়িত করা হয়। সেই ঘটনার পর বিএনপির নেতাকর্মীরা হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে প্রধান আসামী করে মামলা দায়ের করে। তারপর জাতীয় নেতা রাজ্জাক ভাই সহ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নির্দেশে বৃহত্তর ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক সফর আলী,যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না ভাই এবং সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মোসলেহ উদ্দিন সাহেব অত্র এলাকায় হাজার-হাজার নেতা-কর্মীদের নিয়ে গণ অবস্থান কর্মসূচী পালন করেন। পরবর্তীতে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তৎকালীন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ সাহেবের নেতৃত্বে ২৩ শে মার্চ থেকে জনতার মঞ্চে আন্দোলন শুরু করেন এবং ৩০ শে মার্চ পর্যন্ত লাগাতার আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। আন্দোলনের সময় বৃহত্তর ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক সফর আলীর নেতৃত্বে ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান লুৎফর রহমানের অর্থায়নে এবং হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নেতাকর্মীদের জন্য প্রতিদিন খাদ্য ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহের ব্যবস্থা করেন।

আন্দোলন পরবর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে ঢাকা-৪ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হাবিবুর রহমান মোল্লার পক্ষে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই নির্বাচনী প্রচারনা করেন। ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সর্বাত্মক সহযোগিতায় হাবিবুর রহমান মোল্লাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করা হয়।

২০০১ সালে নির্বাচনের পূর্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তৎকালীন বিএনপি-জামাতের নেতাকর্মীরা পুলিশ বাহিনীর সাহায্যে হারুনর রশিদ মুন্না ভাইয়ের বাসভবনে হামলা চালায়। ২০০১ সালে নির্বাচনের দিন বিএনপি-জামাতের কর্মীরা প্রশাসনের সাহায্যে তাকে ধোলাইপাড় কেন্দ্র থেকে লাঞ্চিত করে বের করে দেয়। ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়ের পর বৃহত্তর ডেমরা এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা হন বেগম মতিয়া চৌধুরী। তার সহযোগী হিসেবে ছিলেন লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অবঃ) ফারুক খান, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম মনির হোসেন খান, বর্তমান ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ভাই।

২০০২ সালে বেগম মতিয়া চৌধুরী দায়িত্ব গ্রহণের পর তাঁর নেতৃত্বে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই তৎকালীন বৃহত্তর ডেমরার ১৫টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী ও সংঘবদ্ধ করতে ব্যাপক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন সমূহে উঠান বৈঠক ও কর্মী সভায় স্থানীয়ভাবে নেতৃত্ব দেন তৎকালীন ডেমরা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান মোল্লা ও ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশিদ মুন্না ভাই।

উল্লেখ্য যে, ২০০২ সালে বিএনপি-জামাত পরিচালিত অপারেশন ক্লিনহার্টের সময় হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে আটক করার উদ্দেশ্যে উনার বাসায় এসে উনার অনুপস্থিতে তার বৃদ্ধ পিতা মকবুল হোসেন বেপারীকে সেনাবাহিনী আটক করে নিয়ে যায় এবং পরবর্তী ৫ দিন পোস্তগোলা সেনা ক্যাম্পে আটক রেখে তার পিতার উপর অমানবিক নির্যাতন চালায়। এমতাবস্থায় এলাকার স্থানীয় গণ্য-মান্য ব্যক্তিদের সহায়তায় সেনাবাহিনীর বন্দীদশা থেকে হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের বৃদ্ধ পিতাকে মুক্ত করা হয়।

২০০৪ সালের ১২ই ফেব্রুয়ারী আওয়ামী লীগের ডাকা হরতালে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না ভাই সহ আনুমানিক ১৬ থেকে ১৮ জন ভোরবেলা হরতাল চলাকালীন সময়ে মিছিল থেকে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় এবং তৎকালীন ডেমরা থানার ওসি সালাম হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে শারীরিক নির্যাতন করতে করতে থানায় নিয়ে যায় এবং থানায় নেয়ার পর গ্রেফতারকৃত সকলের উপর অমানবিক নির্যাতন চালায়।পরের দিন হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে ২টি পেন্ডিং মিথ্যা হত্যা মামলা দিয়ে কোর্টে চালান দেয়া হয় এবং ২টি মামলায় উনার ১০ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করে হাজতে প্রেরণ করা হয়, তারপরের দিন তাকে রিমান্ডের জন্য ডেমরা থানায় নিয়ে আসা হয়। ১০দিন রিমান্ডের অসহনীয় নির্যাতন শেষে তাকে জেলে প্রেরণ করা হয়। জেলে যাওয়ার পর তিনি জানতে পারেন শ্যামপুর এবং সূত্রাপুর থানায় ২টি করে আরও ৪টি পেন্ডিং হত্যা মামলায় উনাকে আসামী করা হয়েছে। তার আড়াই মাস পর উনার জামিন মঞ্জুর হয়। জেল থেকে বের হওয়ার সময় ডেমরা থানা পুলিশ উনাকে জেলগেট থেকে পুনঃরায় গ্রেফতার করে থানায় সোপর্দ করে। থানায় আসার পর উনি জানতে পারেন ডেমরা, শ্যামপুর ও সূত্রাপুর থানায় বিভিন্ন অপরাধের পেন্ডিং মামলায় উনাকে আবারও আসামী করা হয়েছে। যেখানে হত্যা মামলা হতে শুরু করে ভাঙ্গচুর, ছিনতাই এমনকি চুরির মামলাও উল্লেখিত। তারপর তাকে আবার কোর্টে চালান করে রিমান্ড মঞ্জুর করে। এভাবে হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে ৩ থানার বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে মোট ৩৩ দিন রিমান্ডে অসহনীয় নির্যাতনের শিকার হতে হয় এবং সর্বমোট ৯ মাস কারাভোগ করতে হয়। উল্লেখিত, এই ৯ মাসে ৪বার উনার জামিন মঞ্জুর হয়। কিন্তু প্রতিবারই জেলগেট থেকে তাকে গ্রেফতার করে বিভিন্ন মামলায় আসামী করা হয়। এভাবে তাকে ৬৪টি মিথ্যা মামলার আসামী করা হয়েছিল। তখন তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সাবেক আইন মন্ত্রী এবং বিজ্ঞ আইনজীবী এড. আব্দুল মতিন খসরু সাহেবের সহায়তায় হাইকোর্টের নির্দেশে উনি মুক্তি পান এবং হাইকোর্ট থেকে রুল জারি করা হয় যে, ওয়ারেন্ট ব্যতিত হারুনর রশীদ মুন্না ভাইকে পুনঃরায় গ্রেফতার করা যাবে না।

হারুনর রশীদ মুন্না ভাই বিবাহের ২ মাস ১৭ দিন পরে গ্রেফতার হয় এবং কারা মুক্তির পরে উনি তার নবজাতক পুত্র সন্তান আলভীকে দেখতে পান।

১/১১ তে দলের জন্য হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের ভুমিকা ঢাকা মহানগরের রাজপথে অনস্বীকার্য। দলের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভ্যানগার্ড হিসাবে ঢাকা-৫ আসনের রাজপথে মুন্না ভাই ছিলেন নিবেদিত প্রাণ। দীর্ঘ দিন কারাবরণ করে, দলের দুঃস্বময়ে রাজপথে আওয়ামি লীগের রাজনীতির জন্য অতন্দ্র প্রহরির মত ছিলেন সক্রিয়।

২০০৭ সালের ১৬ ই জুলাই তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে হারুনর রশিদ মুন্না যাত্রাবাড়ী-সায়াদাবাদ এলাকায় ব্যাপক ভাংচুর ও প্রতিবাদ, প্রতিরোধ বলয় তৈরী করেন। সে কারনে হারুনর রশিদ মুন্নার বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী থানায় মামলা হয়। গ্রেপ্তারি হুলিয়া মামলা মাথায় নিয়েও শেখ হাসিনার মুক্তির জন্য ২,৯৮,৭৭০ টি গনস্বাক্ষর সংগ্রহ করে দলীয় কার্যালয়ে মহানগর দপ্তর সম্পাদক কুদ্দুস জমা দেন।

এরপর ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি আমাদের সকলের ঢাকা-০৫ তৃনমূল আওয়ামী লীগের অভিভাবক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা যখন কারাগারে তখন জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার প্রিয় বড় ভাই হারুনর রশিদ মুন্না কে মনোনয়ন দিলেও তিনি নির্বাচন করতে পিছপা হন কারণ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা তার রাজনৈতিক জীবনের বিশ্বস্ত সহযোদ্ধা এবং বড় ভাই ছিলেন। তৎকালীন সময়ে এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লা যখন কারাবন্দি ছিলেন জেলে থাকা অবস্থায় তাকে সংসদ সদস্য করার পিছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা ছিল হারুনর রশীদ মুন্না ভাইয়ের।২০১৪ এবং ২০১৮ এর জাতীয় নির্বাচনে ঢাকা-০৫ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্বব হাবিবুর রহমান মোল্লাকে জয়যুক্তত করার পিছনে হারুনর মুন্নাভাইয়ের অবদান অনস্বীকার্য ছিল।

এরপর সাবেক এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুর পর ঢাকা-০৫ আসনের শূন্যস্থান পূরণের জন্য রাজপথের তৃণমূল আওয়ামী লীগের আমার আরেকজন শ্রদ্ধাভাজন প্রিয় ভাই, যাত্রাবাড়ী থানার আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুল ইসলাম মনু ভাইকে জননেত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা-০৫ সংসদ নির্বাচনে নৌকার মাঝি হিসাবে মনোনয়ন দিলে ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনের নির্বাচনে, ১৪ দলের প্রধান সমন্বয়ক দায়িত্ব নিয়ে হারুনর রশীদ মুন্না ভাই নৌকার মাঝি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুল ইসলাম মনু এমপি ভাইকে জয়যুক্ত করেন।

কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বিএনপি-জামাত জোট হেফাজত সর্বসময় চাচ্ছে দেশটাকে জঙ্গিবাদের একটি রাষ্ট্র হিসেবে কায়েম করতে। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের এই পথ চলায় এখনো স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিকে ঘায়েল করতে রোদ বৃষ্টি ঝড় এর মাঝেও ঢাকা-০৫ আসনের রাজপথের পথ চলতে তৃনমূল আওয়ামী লীগের কর্মীদের প্রাণভোমরা হয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের জন্য যে কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে কার্পণ্য বোধ করেন না।

হারুনর রশিদ মুন্না ভাই মানুষটি অত্যন্ত সাদা মনের একজন ব্যক্তি। স্কুল, মসজিদ, মাদ্রাসার উন্নয়নে তিনি অতন্দ্র প্রহরী। ঢাকা-৫ আসনের দুঃখী ও দরিদ্র মানুষের পাশে তিনি সর্ব সময় পাশে ছিলেন এমনকি এই করোনা দুর্যোগের সময় ও তিনি নেত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী অসহায় কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন, বর্তমান ঢাকা-০৫ আসন এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুল ইসলাম মনুর সাথে একত্রিত হয়ে যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। এমনকি এই শীতে কম্বল বিতরণ কিংবা রমজানের সময় অসহায় দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ এর জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে তিনি গিয়েছেন, বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিও অব্যাহত রেখেছেন।

সর্বশেষে মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সি বলেন, আমার রাজনৈতিক দুই গুরু নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব একেএম শামীম ওসমান এবং যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্না ভাই এর নির্দেশনা অনুযায়ী বিএনপি জামাতের সময় বহু নির্যাতন সহ্য করেছি। আগামীকাল ২৩/৬/২০২১ ইং তারিখ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী।

একজন আওয়ামী যুবলীগের ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আমার প্রিয় দুই নেতা জননেতা শামীম ওসমান এবং হারুনুর রশিদ মুন্না ভাই ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের সকল নেতাকর্মীদের দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করি। সকলকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। আমার নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করতে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

আমি মোঃ আব্দুল মালেক মুন্সি একজন তৃণমূল আওয়ামী লীগ কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যার নিরলস পরিশ্রম কে ধন্যবাদ জানাই। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© দেশ ও মানুষের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত ©
নির্মাণ করেছেন WooHostBD
Theme Customized BY WooHostBD